BSAEU B.Ed 3rd Semester School Internship Bengali Version || Community Base Activities

BSAEU B.Ed 3rd Semester School Internship Bengali Version

Community Base Activities

ASSEMBLY

Introduction:

বিদ্যালয় পঠন-পাঠন ছাড়াও বেশ কিছু নিয়ম-নীতি থাকে যার মধ্যে একটি হলো প্রার্থনা সভা।প্রায় প্রত্যেক বিদ্যালয় বিদ্যালয় পঠন-পাঠন শুরু করার পূর্বে এই প্রার্থনা সভা হয়ে থাকে।এই প্রার্থনা সভায় বিদ্যালয়ে শিক্ষকশিক্ষার্থীঅশিক্ষক কর্মী,প্রধান শিক্ষক সবাই একটি বড় জায়গায় উপস্থিত হয়।এই প্রার্থনা সভা…………………………………… বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একটি জাতীয় সঙ্গীত বা অন্য কোন সঙ্গীত সমবেত কন্ঠে গায়।বিদ্যালয়ের শরীর শিক্ষার শিক্ষক মহাশয় বেশিরভাগ Assembly এর দায়িত্ব নিয়ে থাকে।কখনো কখনো বিদ্যালয়ের বিশেষ কোনো ঘোষণা এই  Assembly তেই করা হয়ে থাকে[নির্বাচিত বিদ্যালয়ের নাম লিখতে হবে] প্রার্থনা সবাই অনেক সময় খবরের Headlines গুলি ও আলোচনার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আন্তর্জাতিক দেশের সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করতে সক্ষম হয়।এই প্রার্থনা সভার মাধ্যমে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠার সুযোগ পায়।সকল ছাত্র ছাত্রী,শিক্ষকশিক্ষক কর্মীর মধ্যে একটি নিয়মানুযায়ী কাজ করার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়

Objectives:

 বিদ্যালয় প্রার্থনা সভার উদ্দেশ্য গুলি হল নিম্নরূপ –

  • শিক্ষার্থীরা প্রতিদিনের দেশ-বিদেশের খবর জানতে পারে ।
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে নিয়মানুবর্তিতা তৈরি হয়।
  • সকলের সাথে সমবতের ফলে সামাজিক সম্পর্ক গঠিত হয় ।
  • শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে সুমনোভাব গড়ে ওঠে
  • শিক্ষার্থীরা সহধর্মী হয়ে ওঠে
  • বিদ্যালয়ের অন্যান্য কাজকর্মপযোগী হয়ে ওঠে।
  • শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে মিথস্ক্রিয়া গড়ে ওঠে।

Significance:

বিদ্যালয় প্রার্থনা সভার তাৎপর্যপূর্ণ দিক রয়েছে যেমন- প্রার্থনা সভার মাধ্যমে বিদ্যালয় সমস্ত শিক্ষক শিক্ষার্থীর একত্রে জমায়েত হয় ও তাদের মধ্যে ভাবের আদান ঘটনার সুযোগ ঘটে।প্রার্থনা সবাই ত্রকটি প্রার্থনা সংগীত গাওয়া হয় যার মধ্য দিয়ে সঙ্গীতচর্চা হওয়ার প্রচলন তৈরি হয় এছাড়াও সকল শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে নিয়মানুবর্তিতা তৈরি হয়ে থাকে।

Role of Headmaster and Other Teachers:

বিদ্যালয় প্রার্থনা সভায় প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে সেগুলো হলো-

  • প্রার্থনা সভা সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানদান।প্রার্থনা সভার উপকারিতা সম্পর্কে বলা।
  • প্রার্থনা সভায় উপস্থিত হওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা।
  • প্রার্থনা সভার জন্য একটি নির্দিষ্ট টাইম সুনির্দিষ্ট করা।
  • প্রার্থনা সভার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ যেমন মাইকের ব্যবস্থা করা।
  • প্রয়োজনে কঠিন নিয়ম নীতি তৈরি করা।
  • প্রয়োজনে বিভিন্ন ব্যবস্থাদি করা প্রভৃতি।

Role of Non-Teaching Staff:

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষক ছাড়াও অশিক্ষক কর্মীদের ও বিভিন্নভাবে সাহায্য করে থাকেন যেমন-

  • শিক্ষার্থীদের সঠিক সময়ে প্রার্থনা সভায় উপস্থিত হতে বলা
  • বিভিন্ন উপকরণ যথা-mouth speaker বা মাইকের জোগান দেওয়া।
  • বিভিন্ন নিয়ম-নীতি তৈরি করা প্রভৃতি।

Role of Students:

বিদ্যালয় প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা ও ব্যাপক ভূমিকা পালন করে থাকে-

  • শিক্ষার্থীরা নিয়মিত যথাসময়ে প্রার্থনা সভায় উপস্থিত হয়।
  • শিক্ষার্থীরা মনোযোগ সহকারে বিশেষ ঘোষণা বা খবরের শিরোনাম শোনে।
  • নিয়ম অনুযায়ী জমায়েত স্থানে সঠিক ভাবে দাঁড়িয়ে।
  • প্রার্থনা সবাই জাতীয় সংগীত গেয়ে।

Role of Trainee-Teacher:

নির্বাচিত উচ্চ বিদ্যালয়ে একজন প্রশিক্ষক কর্মী হিসেবে প্রার্থনা সভার জন্য যে দায়িত্ব গুলো পালন করেছি সেগুলি হল-

  • শিক্ষার্থীদের প্রার্থনা সবাই নিয়মিতসঠিক সময়ে আসতে বলেছি।
  • শিক্ষার্থীদের প্রার্থনা সভার উপকারিতা সম্পর্কে বলেছি।
  • আমি নিজের সঠিক সময় নিয়মিত প্রার্থনা সভায় উপস্থিত হয়েছি।
  • মাঝে মাঝে প্রার্থনা সভা পরিচালনা করেছি।
  • খবরের শিরোনাম সহ অন্যান্য সাধারণ জ্ঞানমূলক প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেছি।

Suggestion:

প্রার্থনা সভার উন্নতিকরণের জন্য নিম্নলিখিত স্টেপ গুলি নেওয়া যেতে পারে –

  • Assembly এর জন্য একটি বড় রুমের ব্যাবস্থা ।
  • Assembly এর জন্য উন্নত মানের সরঞ্জাম যথা-ঢাকবাজনাহারমোনিয়াম প্রভৃতির আয়োজন ।
  • Assembly এর জন্য উন্নত প্রশিক্ষিত শারীর শিক্ষায় শিক্ষক নিয়োগ।

CULTURAL PROGRAMME

Introduction:

বিদ্যালয় পঠন-পাঠন ছাড়াও আরো অন্যান্য কার্যাবলী সম্পাদিত হয়ে থাকে যার মধ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।প্রতিটি বিদ্যালয়ের ন্যায় ………………………………… বিদ্যালয়েও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে।তবে এই বিদ্যালয়ে বার্ষিক বিদ্যালয় দিবসকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হিসেবে উদযাপন করে থাকে।[নির্বাচিত বিদ্যালয়ের নাম লিখতে হবে]  শিক্ষাবর্ষের শেষে প্রত্যেক বিদ্যালয়েই বার্ষিক বিদ্যালয় দিবস পালন করা হয়।এই অনুষ্ঠান সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের পূর্বেই জানানো হয়ে থাকে যাতে তারা বিভিন্ন বিষয়ে যথা-নৃত্য,গানআবৃত্তি,নাটক ইত্যাদি  নিয়ে প্রস্তুত থাকে।বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিদ্যালয় ও মঞ্চকে বিভিন্ন রংবেরঙের ফুলকাপড়,লাইটিং দিয়ে সাজানো হয়।এছাড়া মঞ্চে বিভিন্ন ফুলের তোড়া রাখা হয়ে থাকে।অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের  ফুলের তোড়া  দিয়ে বরণ করা হয়ে থাকে।অনুষ্ঠান কখনো একদিন আইবা কখনো তিন চারদিন ব্যাপী হয়ে থাকে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হল কোন দেশের বিভিন্ন সংস্কৃতি কৃষ্টি ও ভাষার মিথস্ক্রিয়া।এর মাধ্যমে কোন দেশের বিভিন্ন পুরনো ঐতিহ্য যেমন- লোকসংগীত,লোকনৃত্য ইত্যাদি ও গুরুত্ব পেয়ে থাকে।এর মাধ্যমে শিক্ষার্থী তথা সমাজের মানুষদের নিজ দেশের সাংস্কৃতিক সঙ্গে পরিচয় ঘটানো সম্ভব হয়ে থাকে।

Objectives:

 বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সংগঠিত করার উদ্দেশ্য গুলি হল-

  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে তাদের সংস্কৃতির সাথে পরিচয় করানো
  • বিদ্যালয়ের সাথে জনসম্প্রদায় মিথস্ক্রিয়ার সুযোগ করে দেওয়া
  • শিক্ষার্থীদের সুপ্ত প্রতিভা জাগ্রত করার সুযোগ করে দেওয়া
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে সহযোগিতারসহমর্মিতার মনোভাব গড়ে তোলা
  • বিদ্যালয়ের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন কার্যাবলী তে যেমন বিদ্যালয় সাজানোঅতিথি বরণঅনুষ্ঠান পরিচালনা ইত্যাদির মাধ্যমে এরা ভবিষ্যৎ জীবনের দায়িত্ব পালনে সক্ষম হয়।
  • শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে ।

Significance:

বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান যেমন গুরুত্বপূর্ণ ঠিক তেমনি তাৎপর্যপূর্ণও।বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তাৎপর্যপূর্ণ দিক গুলি হল এর মাধ্যমে বিভিন্ন ধর্মের ও জাতির মানুষ নির্বিশেষে উপস্থিত হয়ে অনুষ্ঠানকে সাহায্য করে থাকেএর ফলে ধর্মীয় গোঁড়ামি তা অনেকটাই দূরীভূত হওয়ার সুযোগ পায়।এছাড়াও ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে তাদের দেশ ও দেশের বিভিন্ন সংস্কৃতির জ্ঞান  তৈরি হয়।এছাড়াও শিক্ষার্থীদের মধ্যে দায়িত্ব কঠোর উন্মেষ ঘটে থাকে।

Role of Headmaster:

বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সংগঠিত হয় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের ভূমিকা অপরিসীম সেগুলি হল-

  • অনুষ্ঠানে কাকে কাকে অতিথি হিসাবে ভাবতে হবে তা নির্ধারণ।
  • অন্যান্য শিক্ষক,শিক্ষার্থী অশিক্ষক কর্মীদের মধ্যে বিভিন্ন দায়িত্ব বিভাজন করে দিতে।
  • সকল শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে নাম নথিকরণ উদ্বুদ্ধ করতে।
  • অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেওয়া।
  • অনুষ্ঠানে বিভিন্ন কার্যাবলী observe করে।

Role of Other Teacher and Non-Teaching Staff:

বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অন্যান্য শিক্ষকগণ ও অশিক্ষক কর্মীদের ও বিভিন্নভাবে সাহায্য করে থাকে যেমন- প্রধান শিক্ষকের নির্দেশ মেনে বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করা।

  • বিভিন্ন অতিথিকে আমন্ত্রণ চিঠি পাঠানো।
  • বিদ্যালয় ও মঞ্চ সাজানোর জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয় করা।
  • শিক্ষার্থীদের কে বিভিন্ন কাজের প্রেরণা জাগানো।
  • অনুষ্ঠানে উপস্থিত জনগণ তথা সকলের জন্য সুব্যবস্থা করা।
  • বিদ্যালয় কে সাজানোই সাহায্য করা ।
  • অভ্যর্থনার ব্যবস্থা করা।

Role of Students:

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিশেষভাবে ভূমিকা পালন করে থাকে যেমন – বিভিন্ন নৃত্য,সংগীতঅভিনয়আবৃত্তি,বক্তৃতা দিয়ে থাকে।

  • অনুষ্ঠানের জন্য বিদ্যালয় সাজানোমঞ্চ সাজানো ইত্যাদি করে থাকে।
  • অভিভাবকদের জন্য বসার সুব্যবস্থা করা।
  • নাটক পরিচালনাদৃশ্য পরিবর্তনে সাহায্য করে।
  • Sound Control এ সাহায্য করে।

Role of Trainee-Teacher:

B.Ed প্রশিক্ষণার্থী হিসেবে নির্বাচিত বিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আমি যে দায়িত্ব গুলো পালন করেছি সেগুলি হল-

  • ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন বিষয় নিত্য সঙ্গীত ইত্যাদিতে অংশগ্রহণ করতে উদ্বুদ্ধ করা।
  • শিক্ষক মহাশয় ও অন্যান্য অশিক্ষক কর্মীদের অনুষ্ঠান পরিচালনায় সাহায্য করা
  • নাটক পরিচালনায় সাহায্য করা।

Suggestion:

বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উন্নতিকরণের যেগুলি হলে ভালো হয় সেগুলি হল-

  • প্রয়োজনে বাইরে থেকে নৃত্যশিল্পীসংগীত নিয়ে আসা দরকার।
  • উপযুক্ত বাদ্যযন্ত্র ও প্রচার করলে ভালো।

SOCIALLY USEFUL PRODUCTIVE WORK

Introductions:

ব্রিটিশ যুগে ভারতবর্ষে শিক্ষা বলতে শুধু কেরানী তৈরির প্রক্রিয়াকেই বোঝানো হতো।তাই সেই সময় শিক্ষা প্রক্রিয়া শুধুমাত্র কাজ চালানোর মত ইংরেজি শেখানো হতো এবং অফিসে কেরানী হওয়ার জন্য আবেদন করার গুণাবলী শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিকশিত করার প্রতি জোর দেওয়া হতো।স্বাধীন ভারতবর্ষে ব্রিটিশ শাসকদের নির্মিত শিক্ষা কাঠামোই গৃহীত হয়েছিল।গান্ধীজী হস্তশিল্প কেন্দ্রিক যে শিক্ষার প্রচলন করেছিলেন তাও সর্বজন স্বীকৃত হয়নি।ফলে শিক্ষার দ্বারা মানব সম্পদ প্রস্তুতির বিষয়টি অবহেলিত হয়ে আসছিল।কোঠারি কমিশনের প্রথম শিক্ষা ক্ষেত্রে কর্মকর্তার এবং প্যাটেল কমিটি  S . V. P. W এর কথা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে উল্লেখ করেন। কোঠারি কমিশন (1964-66) শিক্ষাকে জীবনের সঙ্গেউৎপাদনশীলতার সঙ্গে যোগ করার জন্য কর্মকর্তাকে শিক্ষার একটি বিশেষ  অংশ রূপে  ঘোষণা করেন।কর্ম অভিজ্ঞতা হল এমন এক ধরনের পদ্ধতি যাতে শিক্ষার সঙ্গে কর্মের যোগসুত্র বঞ্চিত হয়।নিজ নিজ গৃহেবিদ্যালয়ে,কর্মশালায়ক্ষেত-খামারে,ফার্মে অংশগ্রহণ বা যেকোনো ধরনের উৎপাদনশীল কর্মের মাধ্যমে কর্ম অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি পায়। V. P. W এরfull form হল-“Socially Useful Productive Work”. According to Wikipedia-” socially useful productive work is a subject in Indian schools where students can whose from a number of vocational education activities-emend, knitting, gardening, cooking, painting and other crafts and hobbies.”

Objectives:

বিদ্যালয়ে S. V. P. W এর উদ্দেশ্য গুলি হল নিম্নরূপ-

  • শিক্ষার্থীদের একক অথবা যৌথভাবে কায়িক শ্রম এর কাজের অভ্যাস গঠন ।
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে শ্রমের প্রতি মর্যাদাবোধ সৃষ্টি করা এবং তাদের কর্ম জগতের সঙ্গে পরিচিত করা
  •  শিক্ষার্থীকে সামাজিক সদস্য রূপে গড়ে তোলা
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে সহমর্মিতাসহযোগিতাআত্মনির্ভরতা প্রভৃতি মূল্যবোধ জাগ্রত করা।
  • শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন কর্ম সম্পাদনে অভ্যস্ত করে তোলা।
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে উৎপাদনাত্মক কাজের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করা ।
  • শিক্ষার্থীদের বৃত্তিমুখী করে তোলা।

Significance:

বিদ্যালয়ে S. V. P. W এর তৎকালীন ভারতের যথেষ্ঠ তাৎপর্য ছিল বর্তমান ভারতের ঠিক ততটাই তাৎপর্যপূর্ণ।কারণ এই শিক্ষা আধুনিক প্রযুক্তিবিদ্যাকে বাস্তব জীবনের বিভিন্ন কাজে প্রয়োগের যেমন শিক্ষা দেয় তেমনি শিক্ষিত ও অশিক্ষিত ও অল্প মধ্যে ব্যবধান দুস্তর ব্যবধান হ্রাস করেকর্মের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ জাগায়যুব সম্প্রদায়কে কর্মের প্রতি সুস্থ মানসিকতার সৃষ্টিতে সাহায্য করে এবং সর্বোপরি জাতীয় উৎপাদন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে অল্পসংখ্যক শিক্ষিত ও বিপুল সংখ্যক অশিক্ষিতদের মধ্যে ব্যবধান কমিয়ে সামাজিকতা ও জাতীয় স্তরে সংহতি প্রতিষ্ঠায় কর্ম অভিজ্ঞতা যেমন প্রয়োজন রয়েছে তেমনি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটাতে সাহায্য করে

Role of Headmaster:

বিদ্যালয়ে S. V. P. W বা কর্ম অভিজ্ঞতার শিক্ষার প্রধান শিক্ষক বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকেন যেমন-

  • বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের S. V. P. W তে উদ্বুদ্ধ করা ।
  • অন্যান্য শিক্ষক ও শিক্ষক কর্মী ও শিক্ষার্থীদের S. V. P.W তে প্রেরণা জাগায়।
  • প্রয়োজনে প্রশিক্ষিত কর্ম অভিজ্ঞতার জন্য শিক্ষক নিয়োগ।
  • প্রয়োজনে এই খাতে অর্থ প্রদান।

Role of Other Teachers:

বিদ্যালয়ে S. V. P. W এর জন্য অন্যান্য শিক্ষকগণ যে দায়িত্ব গুলি নিয়ে থাকেন সেটি হল –

  • শিক্ষার্থীদের কর্মঅভিজ্ঞতা মূলক শিক্ষা সম্পর্কে জ্ঞান দান ।
  • শিক্ষার্থীদের S. V. P. W এর উপকারিতা সম্পর্কে জানানো।
  • শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ জীবনে বৃত্তি নির্বাচনে সাহায্য করা ।
  • শিক্ষার্থীদের সৃজনাত্মক বিকাশে সাহায্য করা ।
  • শিক্ষার্থীদের এই কাজে বিভিন্নভাবে সহায়তা করা যেমন- ধারণা প্রদানপদ্ধতি জানানউপকরণের যোগান প্রভৃতি ।

Role of Non-Teaching Staff:

বিদ্যালয়ে S. V. P. W এর জন্য অশিক্ষক কর্মীগণও বিশেষভাবে সাহায্য করে থাকেন যেমন-

  • বিদ্যালয় উপযুক্ত স্থান বা রুম নির্বাচনে সেখানে শিক্ষার্থীরা নির্বিঘ্নে অভিজ্ঞতা মূলক শিক্ষার প্র্যাকটিক্যাল করতে পারে।
  • বিভিন্ন খাতে খরচের হিসাব রক্ষণ ও অর্থ প্রদানের।
  • প্রয়োজনে নিজেরা শিক্ষার্থীদের সাথে কাজে যোগদান করে।
  • বিভিন্ন উপকরণের যোগান দানে প্রভৃতি।

Role of Students:

V. P. W এর জন্য সবচেয়ে মুখ্য ভূমিকা হল বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের।ছাত্রছাত্রীরা যে কাজগুলো করে থাকে সেগুলি হল –

  • শিক্ষার্থীরা এই ধরনের শিক্ষাই যথেষ্ট আগ্রহ দেখায়।
  • শিক্ষার্থীরা অনেক সময় বিভিন্ন প্রয়োজনীয় উপকরণ ক্রয় করে এই কাজের জন্য ।
  • শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন Waste Material যেমন- ছেড়া কাগজছেড়া কাপড়উলপ্লাস্টিক বিভিন্ন জিনিসপত্র দিয়ে ধৈর্য ও মনোযোগ সহকারে বিভিন্ন সুদূর ও কার্যোপযোগী জিনিস তৈরি করে ।
  • শিক্ষার্থীরা তাদের তৈরি জিনিসপত্র বিদ্যালয় রাখার মধ্যে যে বিদ্যালয় সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ।

Role of the Trainee-Teacher:

আমরা নির্বাচিত বিদ্যালয়ে একজন প্রশিক্ষণের শিক্ষক হিসেবে বিদ্যালয়ে S. V. P. W তে যে ভূমিকা গুলি পালন করেছি সেগুলি হল-

  • ছাত্র-ছাত্রীদের S. V. P. W সম্পর্কে জ্ঞান দান ।
  • শিক্ষার্থীদের S. V. P. W সম্পর্কে বা কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করা।
  • শিক্ষার্থীদের S. V. P. Wএর উপকারিতা সম্পর্কে জানানো।
  • প্রয়োজনে বিভিন্ন জিনিস তৈরি উপকরণ এর জোগান দেওয়া।
  • বিভিন্ন জিনিস তৈরির পদ্ধতি বলে দাওয়া।
  • প্রয়োজনে নিজে তাদের সাথে বিভিন্ন কাজে যোগদান করা।

Suggestion:

  • বিদ্যালয় কর্মশিক্ষা বা S. V. P. W এর উন্নতি কল্পে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি প্রয়োগ করা যেতে পারে –
  • শিক্ষার্থীদের উৎপাদনমূলক শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে।
  • শিক্ষার্থীদের S. V. P. W এর জন্য একটি Laboratory থাকবে সেখানে উৎপাদন মূলক কাজের প্রয়োজনীয় উপকরণ মজুত থাকবে ।
  • প্রয়োজনে অভিজ্ঞ Art and Graft এর Teacher নিয়োগ করতে হবে।
  • বিদ্যালয় উৎপাদন মূলক শিক্ষা কে Compulsory করা যেতে পারে ।

 

GARDENING

INTRODUCTION:

মানুষের জীবনের অগ্রগতির মূল হাতিয়ার হলো শিক্ষা যার মাধ্যমে একটি মানুষের সর্বাঙ্গীণ বিকাশ সম্ভব।কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে এই শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অনেকাংশে পরিবর্তিত হয়েছে।প্রাচীন যুগের শিক্ষা ছিল কেবলমাত্র পুঁথিগত শিক্ষা কিন্তু বর্তমান যুগে শিক্ষার সংজ্ঞা,পরিধি ইত্যাদি বিস্তৃতি লাভ করেছে।শিক্ষা ব্যবস্থায় সার্থকতা নির্ভর করে শিক্ষক-শিক্ষার্থী পাঠ্যক্রম ও বিদ্যালয়ের উপরে।আধুনিক শিক্ষা মনোবিদ্যার শিক্ষার্থীর চাহিদা কৌতূহল,আগ্রহ ইত্যাদির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে আধুনিক প্রথাগত শিক্ষা ব্যবস্থার প্রধান স্থান হল বিদ্যালয়।বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অধিক সময় কাটাতে হয়।তাই এই বিদ্যালয় কে এমন ভাবে সাজানো উচিত যাতে শিক্ষার্থীরা আনন্দের মাধ্যমে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে।বিদ্যালয়ে বিভিন্ন আসবাবপত্রশৌচাগারশিক্ষণ-শিক্ষণীয় উপকরণখেলার মাঠ ইত্যাদির পাশাপাশি বাগান তৈরিও হয়ে থাকে।বড় গাছ যেমন আমাদের ছায়া প্রদান করে তেমনি ছোট গাছও তাদের রংবেরঙের ফুল শিশু শিক্ষার্থীকে আকর্ষিত করে Wikipedia এর মতে-“Gardening Is the Practice of Growing and Cultivating Plants as Part of Horticulture. In Garden Ornamental Plants Are Obtain Grown For Their Flowers, Foliage Old Overall Appearance.’’ “বাগান বিভিন্ন ধরনের হতে পারে- যেমন ফলের বাগানসবজির বাগানফুলের বাগান ইত্যাদি।বিদ্যালয়ের মূলত ফুলের ও কয়েকটা ফলের গাছ লাগানো হয়ে থাকে।মাঠের চারপাশে পাতা বাহারি গাছ এবং অন্য কোন জায়গায় বিভিন্ন রং বেরঙ্গের ফুল গাছ- সূর্যমুখীজবাগোলাপটগর ইত্যাদি লাগানো যেতে পারে।বিদ্যালয়ের বারান্দায় বিভিন্ন টপ গাছ রাখা যেতে পারে

OBJECTIVES:

এই কাজের বিভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে সেগুলি হল নিম্নরূপ-

  • বাগান বিদ্যালয় সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করে
  • ফুলের বাগান শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয় প্রতি আকর্ষিত করে
  • বিদ্যালয়ের পরিকাঠামো কি একটি নির্দিষ্ট আকার প্রদান করে
  • শিক্ষার্থী তথা শিক্ষকদের মানসিক শান্তি প্রদান সাহায্য করে
  • বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ফুলের সাথে পরিচিত হতে পারে
  • শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গাছের প্রতি যত্নশীল হতে সাহায্য করে
  • শিক্ষার্থী তথা শিক্ষকগণ তাদের নিজের বাড়িতে ফুলের গাছ,বিভিন্ন ফলের গাছ লাগানোর প্রতি উদ্বুদ্ধ হয়
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে গাছের প্রতি মমত্ববোধ জাগ্রত করে
  • শিক্ষার্থীরা ফুলের সৌন্দর্য সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করে।

SIGNIFICANCE:

বিদ্যালয়ে বাগান তৈরীর এক বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে।বাগান তৈরি বা গাছ লাগানোগাছ পরিচর্যা করা ইত্যাদি কাজের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে কর্মকুশলতা বৃদ্ধি পায়।এছাড়াও বাগান তৈরীর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে দৃষ্টি নান্দনিকতা বৃদ্ধি পায়। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় এর প্রতি আকর্ষণীয় হওয়ার পাশাপাশি শিক্ষার প্রতি আকর্ষিত হয়।শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ফুলের সাথে পরিচিতি লাভ করে।এছাড়াও এদের মধ্যে ঋতু সম্পর্কে জ্ঞান লাভ থাকে এই কাজের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সহমর্মিতা ও সহযোগিতার মনোভাব গড়ে ওঠে।বাগান তৈরীর কাজ করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে দল গঠন বা সততার মনোভাবও গড়ে ওঠে।শিক্ষার্থীরা গোছালো প্রকৃতির হয়ে ওঠে

ROLE OF HEADMASTER:

বিদ্যালয় বাগান তৈরি বা গাছ লাগানো প্রধান শিক্ষক মহাশয় এর ভূমিকা অনস্বীকার্য।বিদ্যালয়ের প্রধান হিসেবে বিদ্যালয় বাগান তৈরি তিনি যে মুখ্য দায়িত্বশীল নিয়ে থাকেন সেগুলি হল –

  • প্রধান শিক্ষক মহাশয় বিদ্যালয়ে কাচ লাগানোর জন্য নির্দিষ্ট ও পর্যাপ্ত অর্থ নির্ধারণ করে থাকেন।
  • প্রধান শিক্ষক অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষকা মন্ডলীশিক্ষক কর্মী,শিক্ষার্থীদের গাছ লাগানোয় উদ্বুদ্ধ করে
  • প্রয়োজনে বিভিন্ন শ্রমিক নিযুক্ত করে থাকেন।
  • বাগান তৈরীর বিভিন্ন উপকরণ ও সামগ্রীর যোগাড় করে থাকেন ।

ROLE OF TEACHING STAFF:

বিদ্যালয়ে বাগান তৈরীর জন্য অনেকেই ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে যাদের মধ্যে অন্যতম হলো শিক্ষকগণ।শিক্ষক-শিক্ষিকার বিদ্যালয়ে পাঠদান ছাড়াও আরো অন্যান্য  করে থাকেন যেমন Gardening এ শিক্ষার্থীদের পাশে থাকা।বাগান তৈরিতে শিক্ষক-শিক্ষিকা যে কাজগুলি করে থাকেন সেগুলি হল –

  • শিক্ষার্থীদের বাগান তৈরি সম্পর্কে জ্ঞান দান করা ।
  • শিক্ষার্থীদের বাগানের উপকারিতা সম্পর্কে জ্ঞান দান করা ।
  • শিক্ষার্থীদের বাগান তৈরিতে বিভিন্ন উপদেশ বা নির্দেশ দেওয়া ।
  • প্রয়োজনে শিক্ষক-শিক্ষিকা নিজের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন কাজে সাহায্য করা ।
  • শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দানে বিভক্ত করে বাগান তৈরিতে উদ্বুদ্ধ করা ।
  • শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ফুল সম্পর্কে জ্ঞান দান করা,প্রভৃতি ।

ROLE OF NON-TEACHING STAFF:

বাগান তৈরিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী,প্রধান শিক্ষক ছাড়াও অশিক্ষক কর্মীদের ও বিভিন্নভাবে অংশগ্রহণ করে থাকে যেমন –

  • বিভিন্ন খাতে টাকা-পয়সা প্রদান ও হিসাব রক্ষন
  • Gardening এর যথাযথ উপযুক্ত সামগ্রীর যোগাড় করে থাকেন
  • Gardening এর জন্য অন্যান্য শ্রমিকের ও যোগান করে থাকেন প্রয়োজনে
  • বাগানের ফুলের গাছের দেখাশোনারক্ষণাবেক্ষণও করে থাকেন।
  • বাগানে ফুলের গাছ থেকে কেউ ফুল ছিরলে তাদের চিহ্নিত করা ও প্রয়োজনের শান্তি প্রদান প্রভৃতি কাজগুলো করে থাকেন ।

ROLE OF STUDENTS:

বিদ্যালয় বাগান তৈরিতে সবচেয়ে প্রধান দায়িত্ব বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের।বাগান তৈরিতে ছাত্রছাত্রীরা যেসব ভূমিকা পালন করে সেগুলি হল –

  • প্রথম ছাত্রছাত্রীরা কোন জায়গায় কোন আকৃতির বাগান হবে ইত্যাদি ধারণা দিয়ে থাকে
  • কোন কোন ফুল লাগাতে হবে ইত্যাদি ধারণাও অনেক সময় এরাই দিয়ে থাকে।
  • ফুলের রক্ষণাবেক্ষণদেখাশোনা করে থাকে যেমন-
  1. নিরানো,
  2. ফুল গাছ লাগানো,
  3. গাছ গুলোতে নিয়মিত জল দেওয়া,
  4. পাতাবাহারের পাতা বিভিন্ন আকৃতিতে ছাটা,
  5. সার নেওয়া ইত্যাদি ।

ROLE OF TRAINCE TEACHER:

একজন Trainee Teacher হিসেবে নির্বাচিত বিদ্যালয়ে বাগান তৈরিতে যে উদ্যোগ নিয়েছি সেগুলি হল-

  • বাগান নির্মাণের জন্য প্রথমে ফুলের চারা গাছের টপ কেনা হয়েছে
  • বাগানের জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর যোগাড় করা হয়েছে
  • অন্যান্য প্রশিক্ষণীয় শিক্ষকদের উদ্বুদ্ধ করেছি
  • শিক্ষার্থীশিক্ষক মহাশয় ও অন্যান্য কর্মীদেরও উদ্বুদ্ধ করেছি
  • ফুলের টপ গুলিতে চারা গাছ গুলি লাগিয়েছি
  • ফুলের গাছ গুলোতে নিয়মিত জল দিয়েছি।এতে উক্ত বিদ্যালয়ের আবাসনের ছাত্ররা যথেষ্ট সাহায্য করেছে
  • আগাছা গুলি নিরিয়েছি
  • প্রয়োজনে ফুলের গাছে সার প্রদান করেছি
  • এছাড়াও বিদ্যালয়ের পাতাবাহারী গাছগুলির পাতা বিভিন্ন ছাঁচে কেটেছি

SUGGESTION:

বিদ্যালয় বাগান নির্মাণ ও এর উপতির জন্য আগের আলোচনা ছাড়া উচিত গুলি করা দরকার সেগুলি হল-

  • বিদ্যালয় বাগানের পরিচর্যারক্ষণাবেক্ষণ ইত্যাদি কাজগুলোই জন্য অর্থ বরাদ্দ করা প্রয়োজন
  • বিদ্যালয় বাগান নির্মাণ এই কর্মসূচির জন্য একটি Committee করা প্রয়োজন যেখানে থাকবে প্রধান হিসেবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককয়েকজন অন্যান্য শিক্ষকও শিক্ষাকর্মী এবং কয়েকজন শিক্ষার্থী
  • পর্যাপ্ত পরিমান বাগান পরিচর্যার যন্ত্রপাতির আয়োজন করতে হবে
  • প্রয়োজনে উন্নত প্রশিক্ষিত বাগান নির্মাণকারীদের নিয়োগ করতে হবে
  • বাগান যাতে আকর্ষণীয় হয় তার জন্য বিভিন্ন রংবেরঙের ফুল গাছ লাগাতে হবে
  • কতকগুলি নিয়মকানুন বানাতে হবে যেমন- গাছে হাত না দেওয়াপাতা না ছেড়াফুল না তোলা ইত্যাদি

 

CLEANINGNESS AND BEAUTIFICATION OF SCHOOL CAMPUS

 

INTRODUCTION:

বর্তমান যুগের শিক্ষা ব্যতীত কোন সমাজ তথা কোন দেশ উন্নতি সাধন করতে অসক্ষম।শিক্ষা মানুষের মধ্যে লুকিয়ে থাকা আকাশকে দূরীভূত করে আলোর প্রদীপ জ্বেলে দিতে সাহায্য করে।তাই শিক্ষা আমাদের এক অবশ্য প্রয়োজনীয় কর্মসূচি।আধুনিক শিক্ষার মূল লক্ষ্য হলো শিক্ষার্থীর সর্বাঙ্গীণ বিকাশ সাধন যার মধ্যে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জ্ঞান ও সৌন্দর্য সম্পর্কে জ্ঞান দান একটি মূল বিষয়।শিক্ষা ব্যবস্থাপনার মূল চারটি বিষয় হলো- শিক্ষক-শিক্ষার্থী পাঠক্রম ও বিদ্যালয় বিদ্যালয় হল শিক্ষার্থীদের শিক্ষা গ্রহণের প্রধান জায়গা।এই বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের অনেকটা সময় অতিবাহিত করতে হয়।তাই বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধি ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব প্রধানত শিক্ষার্থীদের শিক্ষার্থীরা যত বেশি সচেতন হবে এই পরিষ্কার পরিছন্নতা ও বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে ততটাই বিদ্যালয় পরিষ্কার ও সৌন্দর্যের দিক থেকে এগিয়ে থাকবে।শুধু তাই নয়আমাদের সমাজ ও দেশ  পরিষ্কার ও সুন্দর হয়ে উঠবে বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্যসম্মত ও রোগমুক্ত থাকতে পারবে ও পঠন পাঠন প্রক্রিয়াও অব্যাহত থাকবে।এছাড়াও বিদ্যালয়ের পাড়া-প্রতিবেশী লোকজন বিদ্যালয়ের প্রতি আকর্ষিত হবে ও তাদের ছেলেমেয়েদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে আগ্রহী হয়ে উঠবে

OBJECTIVES:

এই কাজের বিভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে সেগুলি হল –

  • পরিষ্কার পরিছন্নতা বিদ্যালয় সৌন্দর্য বাড়তে সাহায্য করে ।
  • বিদ্যালয়ের পরিবেশ স্বাস্থ্যসম্মত করে তোলা ।
  • বিদ্যালয়কে আকর্ষণীয় করে তোলা ।
  • বিদ্যালয়ের পরিবেশ দূষণ থেকে মুক্ত রাখা ।
  • শিক্ষার্থীদের সুস্বাস্থ্য গরে তোলা ।
  • শিক্ষার্থীদের নান্দনিকতা বৃদ্ধি করা ।
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে পরিছন্নতা বোধ জাগ্রত করা ।

SIGNIFICANCE:

বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ পরিষ্কার পরিছন্নতা ও সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেলেই বিদ্যালয় আকর্ষিত হয়ে ওঠে শিক্ষার্থীদের কাছেশিক্ষকগণের কাছে ও অভিভাবকের কাছে।পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বিদ্যালয়কে রোগমুক্ত রেখে শিক্ষার্থী-শিক্ষকদের শিখন শিক্ষনকে অব্যাহত রাখে বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেলে সমাজ তথা দেশের সৌন্দর্যায়ন ঘটবে শিক্ষার্থীরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে পারে এবং সমাজের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে।

ROLE OF HEADMASTER AND OTHER TEACHERS:

বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ পরিষ্কার ও সৌন্দর্য এবং এই বিষয়গুলি দায়িত্ব হলো বিদ্যালয়ের প্রধান তথা প্রধান শিক্ষক মহাশয়ের।এর পাশাপাশি অন্যান্য শিক্ষকদের এই দায়িত্ব পালন ও সাহায্য করা উচিত বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে পরিছন্নতা ও সৌন্দর্যায়নের জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষক যে কাজগুলি করে থাকেন সেগুলি হল-

  • পরিষ্কার পরিছন্নতা ও সৌন্দর্যায়ন সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান দান
  • বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ পরিষ্কার করা ও বিভিন্নভাবে সাজানোয় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা
  • শিক্ষার্থীদের যেখানে সেখানে আবর্জনা ফেলতে নিষিদ্ধ করা
  • প্রয়োজনে বিভিন্ন সামগ্রী যেমন ফুল,ফুলদানিফুল গাছটব,নানা মনীষীদের ছবি ইত্যাদি ক্রয় করে শিক্ষার্থীদের সেগুলি যথাস্থানে সজ্জিত করতে বলা
  • প্রয়োজনে বিভিন্ন কাজে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দলে বিভক্ত করা
  • শিক্ষার্থীদের নিজের সৃষ্টি জিনিস নিয়ে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন সাজাতে নির্দেশ দেওয়া
  • প্রয়োজনে শিক্ষক মহাশয় নিজেরা ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে কাজ করবেন।

ROLE OF NON-TEACHING STAFF:

 বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ পরিচ্ছন্ন ও সৌন্দর্যায়নের অশিক্ষক কর্মীদের ও অংশগ্রহণ করে থাকেন যেমন –

  • বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয়এর হিসাব রক্ষণ
  • বিভিন্ন সামগ্রী কেনার জন্য মার্কেট যাওয়া
  • প্রয়োজনে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনশৌচাগার ইত্যাদি পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য শ্রমিকের নিয়োগ করা
  • বিদ্যালয় যাতে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকে তার জন্য কতগুলি নিয়ম তৈরি করা যেমন-যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা,ছেরা কাগজ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে না ফেলা ইত্যাদি

ROLE OF STUDENTES:

বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে ও সৌন্দর্য বাড়াতে প্রধান ও মুখ্য ভূমিকা পালন করে বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা।ছাত্রছাত্রীরা যে কাজগুলো করে থাকে সেগুলি হল-

  • ছাত্র-ছাত্রীরা বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ছেরা কাগজ বা অন্যান্য বর্জ্যপদার্থ ফেলেনা
  • ছাত্র-ছাত্রীরা বিদ্যালয় সুসজ্জিত রাখার জন্য তাদের সৃষ্ট Art and Graft এর জিনিস বিদ্যালয়ে যথাস্থানে রাখে
  • বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে যেখানে সেখানে থুতু ফেলে না
  • বিদ্যালয়ের ফুলগাছ ও অন্যান্য গাছগুলির যত্ন করে বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বজায় রাখতে সাহায্য করে

ROLE OF THE TRAINEE TEACHER:

নির্বাচিত বিদ্যালয় হাতিমারি উচ্চ বিদ্যালয়ে একজন Trainee Teacher হিসাবে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন পরিছন্নতা ও সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য আমি যে কাজগুলি করেছি সেগুলি হল-

  • আমি একজন প্রশিক্ষণই শিক্ষক হিসেবে উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিছন্নতা ও সৌন্দর্য সম্পর্কে জ্ঞান দান
  • শিক্ষার্থীদের পরিছন্নতাস্বাস্থ্যসৌন্দর্যনান্দনিকতা সম্পর্কে জানানো ও বিভিন্ন কাজে উদ্বুদ্ধ করা
  • ছাত্র-ছাত্রীদের পরিচ্ছন্ন করতে আমি নিজেও ওদের সাথে পরিস্কারের কাজ করেছি
  • বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য আমরা একটি ফুলদানি ফুলসহ বিদ্যালয় কি উপহার দিয়েছি
  • বিদ্যালয় পরিষ্কার রাখার উদ্দেশ্য একটি ডাস্টবিন এর ব্যবস্থা করেছি

SUGGESTION:

বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ পরিচ্ছন্ন ও সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য যেগুলো উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে সেগুলি হল-

  • বিদ্যালয় প্রাঙ্গন পরিষ্কার ও সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ করা প্রয়োজন
  • বিদ্যালয় পরিষ্কার ও সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর যথা-Dustbin, থুথু ফেলার পাত্রঝাঁটা,ফুলঝাটা,ফুলদামি লাইট ইত্যাদির জোগাড় করা
  • প্রয়োজনে প্রশিক্ষিত Decorator  sweeper রাখার ব্যবস্থা করা.
  • এসব বিষয়ে দেখাশোনার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট Committee তৈরি করা

CLEANING OF FURNITURE

INTRODUCTION:

মানুষের জীবনের অগ্রগতির মূল হাতিয়ার হলো শিক্ষা যার মাধ্যমে কোন মানুষের সর্বাঙ্গীণ বিকাশ সম্ভব হয়ে থাকে।কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে এই শিক্ষার লক্ষ্য,উদ্দেশ্য ও অনেকাংশে পরিবর্তিত হয়েছে। প্রাচীন যুগের শিক্ষা ছিল কেবলমাত্র পুঁথিগত শিক্ষা কিন্তু বর্তমান যুগে শিক্ষার সংজ্ঞা,উদ্দেশ্য ও পরিধি ইত্যাদি যথেষ্ট বিস্তৃতি হয়েছে।শিক্ষা ব্যবস্থাপনার সার্থকতা নির্ভর করে শিক্ষক-শিক্ষার্থী।পাঠক্রম ও বিদ্যালয়ের উপর।বিদ্যালয় হল শিক্ষা গ্রহণের প্রধান স্থান বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অনেকটা সময় অতিবাহিত করে।তাই বিদ্যালয় ও বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র যেমন- চেয়ার টেবিলব্রেঞ্চ,আলমারিদরজা-জানালা,পাখা ইত্যাদি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্বও শিক্ষার্থীদের।নোংরা পরিবেশে পড়াশোনা সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন সঠিকভাবে হয়ে ওঠেনা।এছাড়াও নোংরা পরিবেশে বিভিন্ন রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু জন্ম  নিতে পারে যা শিক্ষার্থী শিক্ষকদের অসুস্থ করে তুলতে পারে তাই বিদ্যালয় প্রাঙ্গন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার পাশাপাশি বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্রও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা উচিত বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার এর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পায়।শিক্ষার্থীরা একসাথে মিলেমিশে এই কাজটি করলে খুব সহজেই অল্পসময়ের মধ্যেই বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র আবার নতুন করে সৌন্দর্যমন্ডিত হয়ে ওঠে

OBJECTIVES:

বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার উদ্দেশ্য গুলি হল-

  • বিভিন্ন জীবাণুর হাত থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষা করা
  • শিক্ষার্থীদের শারীরিক সুস্থতায় সাহায্য করা
  • পিতলের আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন এর মাধ্যমে বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে সু অভ্যাস গরে তোলা
  • বিদ্যালয়কে আকর্ষণীয় করে তোলা।
  • শিক্ষার্থীদের মধ্যে সু মনোভাব গড়ে তোলা

SIGNIFICANCE:

বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার এক বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে।যেমন- বিদ্যালয় পরিবেশ কিছু স্বাস্থ্যকর করে তুলতে গেলে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ সহ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র প্রতিনিয়ত ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা দরকার যাতে কোনো জীবাণু দ্বারা বিদ্যালয় পরিবেশ আক্রান্ত না হয়ে পড়ে এবং বিদ্যালয়েপঠন পাঠন অব্যাহত থাকে মানুষের শরীর ও মন একে অপরের সঙ্গে জড়িত।তাই শিক্ষার্থীদের মন ভালো রাখার জন্য তাদের সুস্বাস্থ্যের দিকেও নজর দিতে হবে।এছাড়াও বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার করার দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের গৃহপরিবেশ সেই দায়িত্ব পালন করার অভ্যাস তৈরি করতে সক্ষম হয়।সর্বোপরি পরিছন্নতা বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে থাকে ও শিক্ষার্থীদের মানসিকতার বিকাশ ঘটে

ROLE OFHEADMASTER AND OTHER TEACHERS:

বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষকদের দায়িত্ব গুলো পালন করে থাকেন সেগুলো হলো-

  • আসবাসপত্র পরিচ্ছন্নতার সম্পর্কে জ্ঞানদান
  • আসবাবপত্র পরিষ্কারে শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা।
  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার উপকারিতা সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের বোঝানো
  • বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার জন্য বিভিন্ন প্রয়োজনীয় সামগ্রী জোগান দেওয়া
  • প্রয়োজনে নিজেরা শিক্ষার্থীদের সাথে বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র পরিষ্কারের কাজে থাকা প্রভৃতি

ROLE OF NON-TEACHING STAFF:

বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র পরিচ্ছন্নতায় বিদ্যালয়ের অশিক্ষক কর্মীগণও বিভিন্নভাবে সাহায্য করে থাকেন যেমন-

  • আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য বিভিন্ন প্রয়োজনীয় সামগ্রী শিক্ষার্থীদের যোগানদান ও হিসাব রক্ষন
  • প্রয়োজনে আসবাসপত্র পরিষ্কারের জন্য উপযুক্ত শ্রমিক নিয়োগ ও শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা
  • প্রয়োজনীয় সামগ্রী ক্রয় করার জন্য বাজার যাওয়া প্রভৃতি

ROLE OF STUDENTS:

বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব হল শিক্ষার্থীদের।বিভিন্ন আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য শিক্ষার্থী যে কাজগুলি করে থাকে সেগুলি হল-

  • শিক্ষার্থীরা আসবাসপত্র যেমন -চেয়ারটেবিলআলমারি ইত্যাদি যাতে নোংরা না হয় তার জন্য তারা কিছু লেখে না
  • নিয়মিত বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র গুলি জল দিয়ে পরিষ্কার করে
  • নিয়মিত আসবাসপত্র গুলি শুকনো ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে
  • প্রয়োজনে ফিনাইল বা এসিড ব্যবহার করে
  • আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য বিভিন্ন নিয়ম নীতি মেনে চলে।

ROLE OF THE TRAINEE TEACHER:

বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার উদ্দেশ্য একজন trainee teacher হিসেবে আমি যে দায়িত্ব গুলো পালন করেছি সেগুলি হল নিম্নরূপ-

  • বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র তথা বিদ্যালয় পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীদের পরিচ্ছন্নতার সম্পর্কে জ্ঞান দান
  • শিক্ষার্থীদের পরিচ্ছন্নতার স্বাস্থ্যসৌন্দর্য ও নান্দনিকতা সম্পর্কে জ্ঞান দান করা
  • প্রয়োজনে শিক্ষার্থীদের সাথে নিজেও এই কাজে হাত দেওয়া
  • কতকগুলি সামগ্রী যথা- Scotch, Acid, Finale ইত্যাদির জোগান দেওয়া
  • বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য কতগুলি নিয়ম তৈরি করা যেমন- বিদ্যালয়ের আসবাসপত্রে কিছু লিখবে না প্রভৃতি

SUGGESTION:

বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য যে উদ্যোগ গুলি নেওয়া যেতে পারে সেগুলি হল-

  • বিদ্যালয়ের বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য সুনির্দিষ্ট অর্থ বরাদ্দ করা প্রয়োজন
  • বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন করার জন্য পর্যাপ্ত প্রয়োজনীয় উপকরণের যোগান
  • আসবাসপত্র পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সচেতনতার প্রয়োজন
  • বিভিন্ন আসবাবপত্র পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে অভিভাবকদের যে জ্ঞানদান ও আলোচনা
  • বিদ্যালয়ের আসবাসপত্র পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট Committee তৈরি করার প্রয়োজন যাদের উপর বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র পরিষ্কার করার দায়িত্ব থাকবে

——–

DAS Coaching PDF Download

More Practicum.  

60 Learning Design pdf Download

 

Warning:

👍If you like our content then comment in the comment box and share.😀

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending Posts
-February 23, 2024
-February 22, 2024
Author

Soumen Das

I am SOUMEN DAS, founder of DAS COACHING. I have been associated with this DAS COACHING online educational platform for 4 years. I am a blogger, YouTuber and teacher. I have been involved in teaching profession for 8 years.

Follow Me

Top Picks
Newsletter
Categories
Edit Template

DAS COACHING is the most trustworthy Learning Site in India and West Bengal. Learn with Us and Buy Our E-Books

© DAS Coaching 2024

Design by Krishanu Chakraborty

Contacts

error: Content is protected !!
×

Hello!

Click one of our contacts below to chat on WhatsApp

× How can I help you?