BSAEU B.Ed 1st Semester Practicum Bengali Version || Course: 1.1.1 (Childhood & Growing Up) || List down few (Classroom) Learning situations involving insightful learning

ভূমিকা (Introduction):

অন্তর্দৃষ্টি হল একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে হঠাৎ কোনো বিষয়ের অর্থ বা কোনো সমস্যার সমাধান সম্ভব হয়। অর্ন্তদৃষ্টির মাধ্যমে যে-কোনো মানুষ বা প্রাণী হঠাৎ করে কোনো বিষয়ের অর্থ বুঝতে পারে বা সমস্যার সমাধান করতে পারে এবং এভাবে যে শিখন সম্পন্ন করে তাকে অন্তদৃষ্টিমূলক শিখন বলে। 

Stephen Kosslyn (American psychologist and neuroscientist) এবং Rosenberg অর্ন্তদৃষ্টিমূলক শিখন বলতে বুঝিয়েছেন “Learning that occurs when a person or animal suddenly grasp what something means and incorporates this new knowledge into old knowledge” অর্থাৎ, কোনো মানুষ বা প্রাণী যখন হঠাৎ করে কোনো কিছুর অর্থ বুঝতে পারে তখনই তার অন্তর্দৃষ্টিমূলক শিখন হয় এবং তখন সে নতুন জ্ঞানকে পুরনো জ্ঞানের মধ্যে আত্মস্ব করে নেয়।

অন্তদৃষ্টিমূলক শিখনের উদাহরণ হিসেবে কোহলারের শিম্পাঞ্জি নিয়ে পরীক্ষার কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। সেখানে সুলতান নামক শিম্পাঞ্জিটি ওপরে ঝোলানো কলার নাগাল পেতে খাঁচার বাইরে রাখা লাঠি দুটিকে খাঁচার মধ্যে এনেছিল এবং একটি দিয়ে যখন নাগাল পাওয়া যাচ্ছিল না তখন কোহলার শিম্পাঞ্জিকে ইঙ্গিত করলেন এবং শিম্পাশ্মিটি খেলতে খেলতে দুটি লাঠিকে জুড়ে সহজেই কলার নাগাল পেল বা সমস্যার সমাধান করতে পেরেছিল। অর্থাৎ, শিম্পাঞ্ছিটির অৰ্ন্তদৃষ্টিমূলক শিখন হল।

কাজের প্রক্রিয়া নির্বাচন (Selection of steps of the Practicum):

 শ্রেণি নির্বাচন: প্র্যাকটিকামটির জন্য পঞ্চম এবং দ্বাদশ এই দুটি শ্রেণিকে নির্বাচন করা হয়েছে।

 কৌশল নির্বাচন: এই কাজটির জন্য “পর্যবেক্ষণ কৌশল” ব্যবহার করা হয়েছে।

 পর্যবেক্ষণের স্থান নির্বাচন: কাজটির জন্য ক্লাস চলাকালীন শ্রেণিকক্ষকে নির্বাচন করা হয়েছে।

 পর্যবেক্ষণের ধরন নির্বাচন: পর্যবেক্ষণের জন্য গুপ্ত পদ্ধতির ব্যবহার করা হয়েছে।

 পর্যবেক্ষণের পদ্ধতি নির্বাচন: এই কাজের জন্য অসংগঠিত পর্যবেক্ষণ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে।

তথ্য সংগ্ৰহ (Collection of data):

নির্বাচিত শ্রেণিকক্ষকে পর্যবেক্ষণ করে অন্তর্দৃষ্টিমূলক শিখনের যে সমস্ত পরিস্থিতি পাওয়া গিয়েছে, তা হল—

শিখন পরিস্থিতির তালিকা (List of learning situations):

 অর্ন্তদৃষ্টিমূলক শিখন পরিস্থিতির তালিকা প্রস্তুত করার জন্য পর্যবেক্ষক (শিক্ষক) কিছু শিখন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে এবং পরিস্থিতিকে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করে অংসগঠিত পর্যবেক্ষণের একটি তালিকা প্রস্তুত করেছে। যেমন—

পরিস্থিতি-১ (Situation-1):

বিদ্যালয়ের নামঃ

শ্রেনীঃ

বিভাগঃ

অংশ গ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের নামঃ

 

  • বিষয়:

অর্ন্তদৃষ্টিমূলক শিখন পদ্ধতিতে “Constructivism” বা “নির্মিতিবাদী শিখন”-র ধারণা গঠন।

  • নির্বাচিত স্থান: 

বিদ্যালয়ের দ্বাদশ শ্রেণির “শিক্ষাতত্ত্বের” শ্রেণিকক্ষ।

  • শিক্ষকের কাজ:

 শিক্ষক শিক্ষাবিজ্ঞানের ক্লাসের সমস্ত শিক্ষার্থীদেরকে ৮টি ভাগে বিভক্ত করে দল গঠন করেন

 শিক্ষক প্রতিটি দলের জন্যই একটাই প্রশ্ন “নির্মিতিবাদী শিখন কি?”—সে সম্পর্কে দলগত আলোচনার মাধ্যমে ধারণা গঠন করতে বললেন এবং আলোচনা শেষে প্রতিটি দল থেকেই সিদ্ধান্ত বলার জন্য নির্দেশ দিলেন।

  • শিক্ষার্থীর কাজ:

শিক্ষার্থীদের প্রতিটি দলের জন্য দেওয়া বিষয়টিকে নিয়ে আলোচনা করার পর কিছু সিদ্ধান্তে পৌঁছল। যেমন—

১ম দল: নিমিতিবাদ হল একটি শিখন পদ্ধতি / শিক্ষণ পদ্ধতি যেখানে শিক্ষার্থী নিজেই নিজের জ্ঞান বা বিষয়গত ধারণা নির্মাণ করে।

২য় দল: এটি এরুপ একটি শেখার প্রক্রিয়া যেখানে শিক্ষার্থী সমস্ত কাজটিই সক্রিয়ভাবে সম্পন্ন করে বা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে করে।

৩য় দল: এই পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীর যে জ্ঞান অর্জিত হয় তা শিক্ষার্থীর পূর্ব অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করে হয়।

৪র্থ দল: এই পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী যেহেতু নিজেই নিজেই শেখে, সেহেতু শিক্ষক এখানে নির্দেশক বা পর্যবেক্ষকের (monitor) ভূমিকা পালন করেন ও পরোক্ষ নির্দেশনা দেন এবং এটি সমস্যা সমাধান মূলক শিখনের সঙ্গে যুক্ত।

  • সিদ্ধান্ত:

৪টি দলের আলোচনাপ্রসূত ফলাফল থেকে শিক্ষক সারাংশ বা উপসংহার হিসেবে বললেন—নিমিতিবাদী শিখন হল এক ধরনের শিখন পদ্ধতি যেখানে শিক্ষার্থী স্বয়ং স্বতঃস্ফূর্ত ও সক্রিয়ভাবে পূর্ব অভিজ্ঞতার আলোকে কোনো সমস্যার সমাধান বা বিষয়গত ধারণা নির্মাণ করে।এখানে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই নিমিতিবাদী শিখন সম্পর্কে ধারণা গঠন করেছে অর্ন্তদৃষ্টির মাধ্যমে।এই শিখনটি দলগতভাবে সম্পন্ন হয়েছে

পরিস্থিতি-২ (Situation-2):

বিদ্যালয়ের নামঃ

শ্রেনীঃ

বিভাগঃ

অংশ গ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের নামঃ

  • বিষয়:

অর্ন্তদৃষ্টিমূলক শিখন পদ্ধতিতে ‘নামতা শেখার নতুন পরিস্থিতি/ পদ্ধতি উদ্ভাবন।

  • নির্বাচিত শিক্ষার্থী:

পঞ্চম শ্রেণির গণিতের ক্লাস।দুজন শিক্ষার্থীর বন্ধু শিক্ষণ (Peer tutoring) সম্পন্ন হয়েছে যেখানে ৯-র ঘরের নামতা, দক্ষ শিক্ষার্থী তার অদক্ষ বন্ধু শিক্ষার্থীকে শিখতে সাহায্য করেছে।

  • শিক্ষকের কাজ:

শিক্ষক শ্রেণিকক্ষের একজন দক্ষ শিক্ষার্থী (১-র ঘরের নামতা জানে না) বন্ধুশিক্ষণ পদ্ধতিতে ১-র ঘরের নামতা আয়ত্ত করার জন্য নির্বাচন ও নির্দেশনা দিয়েছেন এবং তাদের পদ্ধতিটি পর্যবেক্ষণ করেছেন।

  • শিক্ষার্থীর কাজ:

৯-র ঘরের নামতা জানে না, সেই অদক্ষ শিক্ষার্থীকে দক্ষ শিক্ষার্থী বেশ কয়েকবার পুনরাবৃত্তি করার পরেও অদক্ষ শিক্ষার্থীটির বিষয়টি আয়ত্ত করতে অসমর্থ হল।এবার দক্ষ শিক্ষার্থীটি  ৯-র ঘরের নামতার দিকে বেশ কতক্ষণ ভালোভাবে প্রত্যক্ষণ করার পরে দেখতে পেল যে ৯ × ১=৯ এবং ৯ × ১০ = ৯০ এই দুটি ঘরকে বাদ দিয়ে ৯ × 2 = ? থেকে ৯ ×  = ? পর্যন্ত প্রত্যেকটি ঘরের প্রথম সংখ্যাগুলিকে পর্যায়ক্রমে ১ থেকে ৮ পর্যন্ত লিখলে এবং উল্টোদিক থেকে ৯ x ৯ = ? থেকে ৯ × ২= পর্যন্ত প্রত্যেকটি ঘরের দ্বিতীয় সংখ্যাগুলিকে নীচ থেকে পর্যায়ক্রমে ১ থেকে ৮ পর্যন্ত লিখলে প্রতিটি ঘরের ফলাফল সঠিকভাবে বের করা যায়।

 x  = 

 x  = ১৮

 x  = ২৭

 x  = ৩৬

 x  = ৪৫

 x  = ৫৪

 x  = ৬৩

 x  = ৭২

 x  = ৮১

 x ১০ = ৯০

দক্ষ শিক্ষার্থীটির নিকট এটি একটি নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন এবং দক্ষ শিক্ষার্থীটি অদক্ষ শিক্ষার্থীটিকে বিষয়টি বুঝিয়ে দিল। এই পদ্ধতিতে অদক্ষ শিক্ষার্থীটির নামতা আয়ত্ত করতে সুবিধা হল।

  • সিদ্ধান্ত:

এখানে বন্ধু শিখনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অর্ন্তদৃষ্টির জাগরণ হল ও একটি নতুন পদ্ধতির উদ্ভাবন হল।

সিদ্ধান্ত গ্রহণ (Inferences ):

পর্যবেক্ষণ লব্ধ তথ্যের বিশ্লেষণ দ্বারা যে সমস্ত সিদ্ধান্ত পাওয়া যায় তা হল—

  1. অন্তর্দৃষ্টিমূলক হল এক ধরনের সমস্যা সমাধানমূলক শিখন।এখানে শিক্ষার্থী নিজেই নিজের সমস্যার সমাধানের মাধ্যমে শেখে বা বিষয়কে আয়ত্ত করতে পারে।
  2. এই ধরনের শিখন শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক।শিক্ষার্থী নিজেই বিষয়কে আবিষ্ক বা উদ্ভাবন করে,বিষয়কে আয়ত্ত করে।অর্থাৎ নির্মিতিবাদী (Constructivism) ধারণার প্রতিফলন হয় বলে শিখন ভালো এবং স্থায়ী হয়।
  3. এই ধরনের শিখনে ভুল ও প্রচেষ্টার মাধ্যমে যখন হঠাৎ করে সমাধান উদ্ভাবন হয়,তখন মানসিক পরিতৃপ্তির কারণে শিক্ষার্থীর স্বতঃস্ফূর্ততা বৃদ্ধি পায় ও স্ব শিখনের প্রবণতা বেড়ে যায়।
  4. অন্তদৃষ্টিমূলক শিখনে আয়ও করা বিষয়টি দীর্ঘস্থায়ী হয় এবং শ্রেণিকক্ষে এই ধরনের শিখানের চর্চা বেশি হওয়া উচিত।

উপসংহার (Conclusion):

শিখনকে কার্যকারী ও ফলপ্রসু করার জন্য অন্তর্দৃষ্টিমূলক শিখন অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। শিখনের প্রতিটি বিষয়কে শিক্ষার্থীদের সামনে সমস্যার আকারে পরিবেশন করে যদি তাদের অন্তর্দৃষ্টির জাগরণের পরিবেশ তৈরি করা যায়, তাহলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সমস্যা-সমাধানের প্রবণতা তৈরি করা সম্ভব। এই কাজটি করে বিভিন্ন ধরনের অন্তর্দৃষ্টিমূলক শিখনের উদাহরণ পাওয়া গিয়েছে। কাজটি করতে গিয়ে শিক্ষকের বিভিন্ন ধরনের কৃত্রিম শিখন পরিস্থিতি তৈরি করতে হয়েছে। কিন্তু শিক্ষার্থীর যে শিখনটি হয়েছে তা যথাযথ ও কাজটি সার্থকভাবে সমাপ্ত হয়েছে।

References:

  1. সরকার,বি; (২০১৬) শিখন ও শিক্ষণ। আহেলি পাবলিকেশন, কলকাতা
  2. সরকার,বি. (২০১৫) শিশু ও বিকাশ। আহেলি পাবলিশার্স, কলকাতা
  3. Berk, L.E.: (2014) Child development. PHI Learning Private Limited. Delhi-110092
  4. Woolfolk, A. (2008). Educational Psychology Pearson Education, New Delhi – 110017

DAS Coaching PDF Download

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending Posts
-February 23, 2024
-February 22, 2024
Author

Soumen Das

I am SOUMEN DAS, founder of DAS COACHING. I have been associated with this DAS COACHING online educational platform for 4 years. I am a blogger, YouTuber and teacher. I have been involved in teaching profession for 8 years.

Follow Me

Top Picks
Newsletter
Categories
Edit Template

DAS COACHING is the most trustworthy Learning Site in India and West Bengal. Learn with Us and Buy Our E-Books

© DAS Coaching 2024

Design by Krishanu Chakraborty

Contacts

error: Content is protected !!
×

Hello!

Click one of our contacts below to chat on WhatsApp

× How can I help you?